ডাঃ উপেন্দ্রনাথ ব্রহ্মচারী সার্ধশতবর্ষে স্মরণ – ডাঃ দোলনচাঁপা দাশগুপ্ত

ডাঃ উপেন্দ্রনাথ ব্রহ্মচারী সার্ধশতবর্ষে স্মরণ – ডাঃ দোলনচাঁপা দাশগুপ্ত

তখন মাত্র কয়েকমাস হল জন্ম নিয়েছেন পুত্র সত্যজিৎ। হঠাৎই শারীরিক অবস্থার অবনতি হতে শুরু করে সুকুমার রায়ের। জানা যায়, কালাজ্বরে আক্রান্ত তিনি। মৃত্যু অনিবার্য। তখন তাঁর বয়স মাত্র ৩৪ বছর। তিনি কি ভেঙে পড়বেন? সুকুমার বুঝি তেমন মানুষ? ততদিনে কালাজ্বরের ওষুধ আবিষ্কার করে ফেলেছেন স্যার উপেন্দ্রনাথ ব্রহ্মচারী। এই কলকাতার বুকেই। কিন্তু ১৯২১ সালের সেই আবিষ্কার…

বর্ষশেষের কলকাতা : কলকাতার ক্রিকেট (পর্ব ১২) – সুমিত গঙ্গোপাধ্যায়
|

বর্ষশেষের কলকাতা : কলকাতার ক্রিকেট (পর্ব ১২) – সুমিত গঙ্গোপাধ্যায়

পর্ব ১২ ১৯৪১-৪২ মরশুমের সময় আন্তর্জাতিক ও জাতীয় রাজনৈতিক পদ্ধতি ক্রমাগত জটিল হয়ে উঠছিল। বসু কংগ্রেসের সঙ্গে সরাসরি সমস্যা ব্যাপক আকার ধারণ করছিল। আসামে জরুরি অবস্থা জারি করার মতো পরিস্থিতি তৈরি হয়। ওদিকে দক্ষিণ পূর্ব এশিয়ায় ফিলিপাইন প্রায় আত্মসমর্পণ করার জায়গায় চলে যায়।কলকাতায় একফোঁটাও বিরাম ছিল না ক্রিকেটের। সেই সময় ২৫ ডিসেম্বর, ১৯৪১; কলকাতায় স্থানীয়…

বর্ষশেষের কলকাতা : কলকাতার ক্রিকেট (পর্ব ১১) – সুমিত গঙ্গোপাধ্যায়
|

বর্ষশেষের কলকাতা : কলকাতার ক্রিকেট (পর্ব ১১) – সুমিত গঙ্গোপাধ্যায়

একাদশ পর্ব ১৯৪০ এল বিশ্বযুদ্ধ নিয়ে। আন্তর্জাতিক ক্রিকেট প্রায় বন্ধ হয়ে গেল। ভারত বাদে সর্বত্র প্রথম শ্রেণির ক্রিকেটও বন্ধ। কিন্তু ভারতে স্থানীয় ক্রিকেটের সর্বোৎকৃষ্ট রূপ এই সময়ে দেখা যায়। প্রথম বিশ্বযুদ্ধ ভারতীয় ক্রিকেটকে ব্রিটিশ নির্ভরতা কাটিয়ে উঠতে সাহায্য করে। কিন্তু দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধ নিয়মিত উন্নত মানের ঘরোয়া ক্রিকেটের মাধ্যমে দলের জাতীয় ভিত্তি মজবুত করে। এই পর্বে…

বর্ষশেষের কলকাতা : কলকাতার ক্রিকেট (পর্ব ১০) – সুমিত গঙ্গোপাধ্যায়
|

বর্ষশেষের কলকাতা : কলকাতার ক্রিকেট (পর্ব ১০) – সুমিত গঙ্গোপাধ্যায়

পর্ব ১০ ১৯৩৭ সালের মরশুম বাংলা তথা ভারতের ক্রিকেটে খুবই গুরত্বপূর্ণ সময়। সেই বছর শেষের দিকে এম সি সি তার সরকারী দল নিয়ে দক্ষিণ আফ্রিকা সফরে যায়। ফলে লর্ড টেনিসনের (কবির ভ্রাতুষ্পুত্র) দল ভারত সফরে এসে বেসরকারি টেস্ট খেলে। তবে সেটা ১৯৩৭-৩৮ মরশুমে। তার আগে ১৯৩৬-৩৭ মরশুমে কলকাতায় CU বেশ কটা আন্তঃ বিশ্ববিদ্যালয় ম্যাচ খেলেছিল।…

আজও বাঙালি মানসে ডি এল রায় অবহেলিত – দীপক সাহা

আজও বাঙালি মানসে ডি এল রায় অবহেলিত – দীপক সাহা

বহুমাত্রিক প্রতিভার অধিকারী দ্বিজেন্দ্রলাল ছিলেন কবি নাট্যকার এবং সঙ্গীত স্রষ্টা। তাঁর বাবা কার্তিকেয় চন্দ্র রায় ছিলেন কৃষ্ণনগর রাজবংশের দেওয়ান এবং মা প্রসন্নময়ী দেবী ছিলেন অদ্বৈত প্রভুর বংশধর। তাঁর ঠাকুরদা মদনগোপাল রায়ের নাম অন্নদামঙ্গলে অন্বিত করেছেন রায়গুণাকর ভারতচন্দ্র। কার্তিকেয় চন্দ্র নিজেও ছিলেন একজন বিশিষ্ট খেয়াল গায়ক ও সাহিত্যিক। তাঁর দুই দাদা রাজেন্দ্রলাল ও হরেন্দ্রলাল এবং এক…

বর্ষশেষের কলকাতা : কলকাতার ক্রিকেট (পর্ব ৯) – সুমিত গঙ্গোপাধ্যায়
|

বর্ষশেষের কলকাতা : কলকাতার ক্রিকেট (পর্ব ৯) – সুমিত গঙ্গোপাধ্যায়

নবম পর্ব ১৯৩৫ সালের পর থেকে ভারতীয় রাজনীতি অন্যদিকে মোড় নেয়। বোঝাই যাচ্ছিল যে কোনও ভাবেই ব্রিটিশরা আর এই দেশ ধরে রাখতে পারবে না। এমতাবস্থায় ভারতীয় ক্রিকেট বিশেষ করে বাংলার ক্রিকেটেও পরিবর্তনের ছোঁয়া লক্ষ করা যায়। ইডেনে গোটা শীতকাল ধরে প্রচুর গুরুত্বপূর্ণ ম্যাচ খেলা হয়। প্রথমেই ডিসেম্বর মাসে (১৯৩৫) রোহিন্টন বারিয়া ট্রফির দুটো ম্যাচ হয়।…

ধর্মযুদ্ধ – অশোক মিত্র (পুনর্পাঠ)
|

ধর্মযুদ্ধ – অশোক মিত্র (পুনর্পাঠ)

যা বলার, অল্প কথাতেই বলা চলে।  আমি ভারতীয়, তথা বাঙালি, রবীন্দ্রনাথের দেশের মানুষ আমি। আমার চেতনায় রবীন্দ্রনাথ, আমি যে ভাষায় ভাবনা ব্যক্ত করি, তা রবীন্দ্রনাথের একান্ত সৃষ্টি, যে-গান আমাকে উদ্বেলিত অনুপ্রাণিত করে, তা-ও । এখান-ওখান থেকে যত প্রলেপই পড়ুক, ধুলোর আস্তরণ সরালে, আমার সত্তার গভীরে রবীন্দ্রনাথের চিন্তা প্রোথিত। যত অহংকারই করি, রবীন্দ্রনাথকে বাদ দিয়ে আমার…

ভাঙা চোয়াল, শক্ত চোয়াল – সৌম্যজিৎ রজক

ভাঙা চোয়াল, শক্ত চোয়াল – সৌম্যজিৎ রজক

আট ঘণ্টার বেশি কাজ নয়। এ তো আর নতুন না, সেই কবেকার দাবি! বহু রক্তক্ষয়ী সংগ্রামে অর্জিত সে অধিকার। তবু আজও সাত সকালে বেরোতে হয় বাইক নিয়ে। কাজ সেরে ফিরতে ফিরতে রাত দশটা-এগারোটা! বারোটাও বেজে যায় কোনও কোনোদিন। জয়ন্তর এমনই জীবন। দৈনিক পনের ঘণ্টা গড়ে কাজ। দিনে অন্তত ২২টা ডেলিভারি করেন জয়ন্ত। তবে গিয়ে বাইক…

আদিবাসী বিদ্রোহ : একটি ব্যক্তিগত পাঠ –  অন্বেষ বন্দ্যোপাধ্যায়

আদিবাসী বিদ্রোহ : একটি ব্যক্তিগত পাঠ – অন্বেষ বন্দ্যোপাধ্যায়

ভারতবর্ষের ইতিহাসে ব্রিটিশ বিরোধী সংগ্রামে বিভিন্ন আদিবাসী বিদ্রোহগুলি স্বতন্ত্র গৌরবের দাবি রাখে। ঔপনিবেশিক শাসনের বিরুদ্ধে এই স্বতঃস্ফূর্ত দ্বন্দ্বাহ্বান উঠে এসেছিল সমাজের সবচেয়ে নিচুতলা থেকে। এই বিদ্রোহের আদর্শ ও নেতৃত্ব পাশ্চাত্য শিক্ষায় শিক্ষিত মধ্যবিত্ত শ্রেণীর কাছ থেকে ধার করা ছিল না। তা ছিল অনার্যদের নিজস্ব কণ্ঠস্বর। সামগ্রিকভাবে সমস্ত আদিবাসী বিদ্রোহগুলিকে অনুসন্ধান করা যাক। আমরা যাদের আদিবাসী…

বর্ষশেষের কলকাতা : কলকাতার ক্রিকেট (পর্ব ৮) – সুমিত গঙ্গোপাধ্যায়
|

বর্ষশেষের কলকাতা : কলকাতার ক্রিকেট (পর্ব ৮) – সুমিত গঙ্গোপাধ্যায়

অষ্টম পর্ব ১৯২৮ সালে বোর্ড তৈরি হওয়ার পরেই স্থির করা হয় ১৯৩০-৩১ মরশুমে এম সি সি আসবে ভারতে। তখন ইংল্যাণ্ডের ক্রিকেটের নিয়ম স্থির করত এম সি সি। ট্যুর ম্যাচ এই নামেই খেলত তাঁরা। টেস্ট খেলত ইংল্যাণ্ডের নামে। কিন্তু ওই বছর ভারতের রাজনৈতিক আবহাওয়া খুব একটা ভালো ছিল না ইংরেজদের পক্ষে। মহাত্মা গান্ধীর নেতৃত্বে তখন শুরু…